ঢাকা, বাংলাদেশ | বুধবার | ২৮ অক্টবর | ২০২০ | ৫:২৬ pm

×

অর্থনীতি

জুন ২৬, ২০২০, ২:৫১ pm

সুইস ব্যাংকের বাংলাদেশিদের অর্থের পরিমাণ ২.২৬ শতাংশ কমেছে

Shahin Talukder
সুইস ব্যাংক

ছবি - সুইস ব্যাংক

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ  সুইস ন্যাশনাল ব্যাংকের (এসএনবি) অনুযায়ী, ২০১২ সালে সুইস ব্যাংকগুলিতে বাংলাদেশিদের আমানত বছরে ২.২ শতাংশ হ্রাস পেয়ে ৬০৩ মিলিয়ন সুইস ফ্রাঙ্ক বা ৫,৪২৭ কোটি টাকা হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০১৮ সালে এই পরিমাণ ছিল ৫৫৫৩ কোটি টাকা এবং ২০১৭ সালে ৪৩২৯  কোটি টাকা।

বৃহস্পতিবার প্রকাশিত “সুইজারল্যান্ডে ২০১৯ সালে ব্যাংকস” শীর্ষক বার্ষিক প্রতিবেদনে এসএনবি এই তথ্য প্রকাশ করেছে। এই প্রতিবেদনে অবশ্য বাংলাদেশীদের হাতে থাকা কালো অর্থের বিষয়ে কোনও আলোকপাত করা হয়নি।

পাকিস্তান এই পরিসংখ্যাননে ৫০ শতাংশের চেয়ে কমে  কেবল ৩৫৯ মিলিয়ন সুইস ফ্র্যাঙ্কে এবং ভারত ৫ শতাংশেরও বেশি ৮৯২ মিলিয়ন সিএইচএফ-তে তুলতে সক্ষম হয়েছিল। পাকিস্তান সুইস ব্যাংকগুলিতে তহবিলের উল্লেখযোগ্য হ্রাস দেখতে পেয়েছে,২৪ বছর আগে এসএনবি তার রিপোর্টে দেশের নাম প্রকাশ করতে শুরু করার পর প্রথমবারের মতো ব্যাংকগুলির কাছে অর্থ জমা দেওয়ার ক্ষেত্রে দক্ষিণ আফ্রিকার পরে বাংলাদেশ দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে।

কেবলমাত্র এই অঞ্চলের আফগানিস্তানই গত বছর সুইস ব্যাংকের মোট জমা পরিমাণে ইতিবাচক প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছে।

সুইস ব্যাংকগুলিতে ভারতীয়রা দ্বিতীয় বছরে সরাসরি পড়েছিল - এইবারে সিএইচএফ ৫৫ মিলিয়ন বা ৫.৮ শতাংশ, সিএইচএফ ৮৯৯ মিলিয়ন (৭১০০ কোটি) - এ দাঁড়িয়েছিল, যখন এই সংখ্যাটি সর্বোচ্চ ৬.৪৮ বিলিয়ন ছিল ২০০৬ সালে, ভারতের আসন্ন সরকার ক্ষমতায় আসার পরে ২০১৪ সালে এটি সিএফএফ ১.৮১ বিলিয়ন (১৪,৪০০ কোটি টাকা) দাঁড়িয়েছিল এবং অর্থনীতিতে কালো টাকা আটকাতে এবং গত কয়েক বছর ধরে কেন্দ্রের পদক্ষেপের সাথে মিল রেখে এটি অনুসরণ করেছে। ২০১৬ সালে নতুন কাঠামো স্থাপন করে যা সুইজারল্যান্ড এবং ভারতের মধ্যে কালো অর্থের সমস্যা রোধে তথ্য আদান-প্রদানের মঞ্জুরি দেয়।

২০১৮ সালে সিএফএফ থেকে ১.৯৯ ট্রিলিয়ন থেকে মোট বিদেশি আমানত ৩.১ শতাংশ বেড়ে সিএইচএফ ১.৪৪ ট্রিলিয়ন হয়েছে, চীন তার বাসিন্দাদের যে অর্থ ব্যয় করেছে, তা ২০১৩  সালে সিএইচএফ থেকে ১৩.৫ বিলিয়ন থেকে সিএফএফ ১৫.৩ বিলিয়ন হয়েছে।

২০১২ সালের জন্য জুরিখ ভিত্তিক সুইস ন্যাশনাল ব্যাংক (এসএনবি) থেকে প্রকাশিত সর্বশেষ তথ্যটি সুইস ব্যাংকের আমেরিকান বাসিন্দাদের আমানতের তীব্র বৃদ্ধি দেখায় যেটি সিএইচএফ ১৭.৮ বিলিয়ন বা ১২.৫ শতাংশ বেড়ে সিএইচএফ ১৬০ বিলিয়ন হয়েছে।